ব্যথা থেকে আরামের জন্য কাজের ফাঁকে ফাঁকে ব্রেক নিয়ে শরীর স্ট্রেচ করুন। সামনে এবং পিছনে ঝুঁকে যে-এক্সারসাইজগুলি রয়েছে সেগুলি করুন। বসার পশ্চার সঠিক রাখুন।

আমি ৩৫ বছর বয়সি কর্মরতা একজন মহিলা যেহেতু আমি কম্পোজিটর কাম গ্রাফিক ডিজাইনার, তাই আমাকে কম্পিউটারে সারাক্ষণ কাজ করতে হয়। এর ফলে বেশিক্ষণ বসে কাজ করার জন্য আমার শিরদাঁড়ায় Pain হয় । ব্যাথা এক একসময় এত বেশি হয় যে কাজ করতে খুব অসুবিধা হয়। আর শীতকাল এলে ঠান্ডার জন্য কিনা জানিনা, যন্ত্রণা দ্বিগুণ হয়ে যায়। তখন ব্যথা সহ্য করে উঠতে পারি না, যার জন্য কাজ করতেও সমস্যা হয়। মাঝে মাঝে কাজ বন্ধ করে চুপচাপ শুয়ে থাকি। এতে খানিকটা আরাম হয়। তবে, একটা সাময়িক। কাজে বসলে আবার যে কে সেই‌! এছাড়াও চোখের ব্যথার সমস্যাও হয়ে থাকে মাঝেমধ্যেই। কী করলে এই সমস্যা থেকে মুক্ত হতে পারব? দয়া করা জানালে আমি খুবই উপকৃত হই।

 

এই বয়সে হাড়ের সমস্যা শুরু হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক। বিশেষ করে যারা কম্পিউটারে বসে কাজ করে তাদের এই সমস্যা বেশি হয়ে থাকে। একই ভাবে অনেক্ষণ বসে থাকলে হাড়ে Pain হবেই। ঠান্ডায় জড়তা বেশি হওয়ার জন্য ডিস্ক-এর নার্ভে চাপ বেশি পড়ে যাতে ব্যথা আরও বেড়ে যায়। ব্যথা থেকে আরামের জন্য কাজের ফাঁকে ফাঁকে ব্রেক নিয়ে শরীর স্ট্রেচ করুন। সামনে এবং পিছনে ঝুঁকে যে-এক্সারসাইজগুলি রয়েছে সেগুলি করুন। বসার পশ্চার সঠিক রাখুন। ব্যথায় আরাম পাওয়ার জন্য সঠিক পুষ্টিকর আহার গ্রহণ করুন এবং প্রচুর জল খান। সময় পেলে পিঠে হালকা গরম তেল মালিশ করুন। হালকা হাতে মালিশ করলে, দেখবেন আরাম অনুভব করছেন। তবে ভালো হয় একবার কোনও ফিজিয়োথেরাপিস্ট-কো দেখিয়ে নেওয়া এবং ওনার পরামর্শ মেনে চলুন, তাহলে অনেকটা সুস্থ স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবেন।

চোখের সমস্যা এড়াতে কম্পিউটার স্ক্রিন থেকে নির্দিষ্ট দূরত্বে বসে কাজ করুন । এছাড়াও স্ক্রিনের কনট্রাস্ট ও ব্রাইটনেস ঠিক রাখলে সমস্যা কিছুটা কমবে। প্রতি আধ ঘণ্টায় পাঁচ দশ মিনিটের বিরতি নেওয়া বাঞ্ছনীয়। এতে চোখ বেশ খানিকটা আরাম পাবে। চোখে কিছুক্ষণ পর পর জলের ঝাপটা দেওয়াও খুবই প্রয়োজন। বাড়ি থেকে যদি কাজ করেন তাহলে চোখ বন্ধ করে কিছুক্ষণ শুয়ে নিতে পারেন। চোখের উপর ভিজে তুলো বা গোলাপজল দিলে আরাম অনুভব করবেন। বারবার চোখের পাতা খোলাবন্ধ করুন এবং ঘরে যেন পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা থাকে। এছাড়াও চোখ কে বাঁচাবার জন্য কম্পিউটার এ কাজ করার বিশেষ চশমা কিনতে পাওয়া যায়, এই ধরনের চশমা ব্যবহার করতে পারেন। এসবেও যদি চোখের আরাম না হয় তাহলে ডাক্তার দেখানো ছাড়া অন্য কোনও উপায় নেই।

 

 

Tags:
COMMENT