সকলেই বর্ষা আসার অপেক্ষায় থাকেন কারণ বর্ষা আসা মানে গরম থেকে মুক্তি। এই আবহাওয়া যতই প্রশান্তি আনুক না কেন, ভুললে চলবে না এই আবহাওয়ায় আর্দ্রতাও অত্যন্ত বেশি যেটা কিনা অ্যাক্নে হওয়ার কারণ। যাদের ত্বক তৈলাক্ত এবং কম্বিনেশন ত্বক তারা এই মরশুমে সমস্যায় পড়েন। দুশ্চিন্তা করা এই সমস্যার সমাধান নয় বরং প্রয়োজন সঠিক বিউটি প্রোডাক্ট ব্যবহার করা। যেটি ত্বক পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গে পিএইচ লেভেল-এরও ভারসাম্য বজায় রাখবে। যার ফলে বর্ষার মরশুম যেমন এনজয় করতে পারবেন, তেমনি ত্বকে অ্যাক্নে-রও সমস্যা থাকবে না। এর জন্য Bioderma Sebium Gel moussant সব থেকে ভালো প্রোডাক্ট, যেটি আপনার ত্বক হেলদি এবং পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে।

অ্যাকনে সমস্যা কেন হয় ?

বর্ষার মরশুমে আবহাওয়ায় আর্দ্রতার পরিমাণ বেশি থাকে। যার জন্য ত্বকে সিবাম-এর অতিরিক্ত উৎপাদনের ফলে ত্বক তৈলাক্ত হয়ে পড়ে এবং ব্যাক্টেরিয়ার আক্রমণের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে। চটচটে তৈলাক্ত ত্বকে সহজেই নোংরা, ঘাম আটকে যায় বলে ত্বকের পোরস বন্ধ হয়ে যায় সঙ্গে অ্যালার্জি, অ্যাক্নে ব্রেকাউটস-এরও বাড়বৃদ্ধি হয়। কম্বিনেশন এবং অয়েলি ত্বক যাদের, তাদের বেশি সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। যত্নের অভাবে ত্বকের বেরিয়ার ঠিকমতো কাজ করতে পারে না ফলে অ্যালার্জি এবং ত্বকের পোরস বন্ধ হয়ে যায়। এতে মুখে Acne-এর সমস্যা শুরু হয় ও ত্বকের রং-ও ফ্যাকাশে হতে থাকে। এই পরিস্থিতিতে সঠিক ক্লিনজার ব্যবহার করে ত্বকের যত্ন নেওয়া জরুরি হয়ে পড়ে।

বায়োডার্মা সিবাম জেল moussant

এটির বিশেষত্ব হল, ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রেখে ত্বককে পরিষ্কার করে। এতে জিংক সালফেট ও কপার সালফেট-এর মতো উপাদান আছে, যেগুলি ত্বকের কোনওরকম ক্ষতি না করে এপিডার্মিস লেয়ার অর্থাৎ ত্বকের উপরি পরত পরিষ্কার করে সিবাম সিক্রিয়েন কমাতে সহায়তা করে। এর ফলে অ্যাকনে-এর সমস্যা হয় না। অ্যাকনে-এর কারণে হওয়া ত্বকের দাগছোপও এতে দূর হয়। এটির সোপ-ফ্রি ফর্মুলা ত্বকের পিএইচ লেভেল-এরও ভারসাম্য বজায় রাখে, যাতে নতুন সমস্যা দেখা দেওয়া ছাড়াই ত্বকের সমস্যা ঠিক হয়ে যায়।

ইউএসপি জেনে তবেই কিনুন

জেন্টলি ত্বক পরিষ্কার করুন: সেই প্রোডাক্ট-ই ত্বকের জন্য বাছা উচিত, যা হার্শ এফেক্ট ছাড়াই ত্বককে পরিষ্কার করে। জেন্টল বিউটি প্রোডাক্ট সহজে ত্বকের নোংরা দূর করে এবং ত্বকের ন্যাচারাল অয়েলও বজায় রাখে। এর ফলে ত্বক হাইড্রেটেড থাকে সঙ্গে নোংরা, দূষণের প্রভাব দূর হয়ে গিয়ে ত্বক থাকে অ্যাকনে-ফ্রি এবং সুন্দর।

পিএইচ লেভেল বজায় রাখে: সিবাম জেল moussant ত্বকের পিএইচ লেভেল-এর ভারসাম্য বজায় রাখার সঙ্গে সঙ্গে ত্বকের প্রোটেক্টিভ বেরিয়ারেরও কাজ করে। এর জন্য ত্বকের সংক্রমণ এবং ব্যাক্টেরিয়ার আক্রমণের ভয় অনেক কমে যায়। এছাড়াও বাইরের দূষণ থেকে ত্বক সুরক্ষিত থাকে। হেলদি এবং আকষর্ণীয় ত্বকের জন্য প্রয়োজনীয় ময়েশ্চারও ত্বকে বজায় থাকে।

সিবামের অতিরিক্ত ৎপাদন রোধ করে: ত্বকে যখন অত্যধিক সিবাম উৎপাদন হতে থাকে, তখন ত্বক অতিরিক্ত তৈলাক্ত হয়ে পড়ে সঙ্গে পোরস ক্লগ হয়ে পড়াতে অ্যাকনে-এর সমস্যা বৃদ্ধি পায়। কিন্তু সিবাম জেল moussant-এ জিংক সালফেট-এর উপস্থিতি ত্বকে অতিরিক্ত তেল উৎপাদন রোধ করতে সাহায্য করে। এতে থাকা কপার সালফেট ত্বককে ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে সুরক্ষা দেয় এবং ত্বককে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল রাখতে সাহায্য করে।

পোরস বন্ধ হতে দেয় না: এই প্রোডাক্টটি নন কমোডোজেনিক, নন ডাই এবং এটি সোপ-ফ্রি হওয়ার দরুন অ্যাক্নে প্রোন। কম্বিনেশন এবং তৈলাক্ত ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপযোগী প্রোডাক্ট। কেউ যদি চিন্তা না করেই, কী উপাদান ব্যবহার হয়েছে চেক না করেই বিউটি প্রোডাক্টস কেনেন, তাহলে প্রোডাক্টে অতিরিক্ত কেমিক্যালস থাকলে সেটা পোরস বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণ হয়। এতে অ্যাকনে, ত্বকের অ্যালার্জি বেড়ে যায়। অথচ বায়োডার্মার এই প্রোডাক্টটি নিরাপদে ব্যবহার করতে পারেন।

ডার্মাটোলজিকালি টেস্টেড: যে-কোনও বিউটি প্রোডাক্ট-ই আমরা কিনি না কেন, তা ডার্মাটোলজিকালি টেস্টেড হওয়া দরকার। এই প্রোডাক্টটি ডার্মাটোলজিকালি টেস্টেড। ফলত কোনওরকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই এটি অ্যাকনে সমস্যার থেকে সুরক্ষা দেবে এবং ত্বকের ন্যাচারাল অয়েল-ও বজায় রাখবে। সারা বিশ্বের সেলিব্রিটিরাও এই প্রোডাক্টটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেন। এটি মাইল্ড হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ত্বকেরও উপযোগী এবং চোখেরও কোনওরকম ক্ষতি করে না।

কীভাবে প্রয়োগ করবেন

সারা সপ্তাহের সাতদিনই এটি আপনার সকাল ও সন্ধের রুটিনের অন্তর্ভুক্ত করুন। ভেজা মুখে ক্লিনজার লাগানো মাত্র, এটি ফেনা হয়ে কাজ শুরু করবে। এরপর জল দিয়ে পুরো মুখ ভালো করে ধুয়ে ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। এর ফলে ত্বক পরিষ্কার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কিছুদিনেই পাবেন অ্যাকনে ফ্রি ত্বক। সুতরাং আজই এটি নিজের বিউটি রুটিনের অন্তর্ভুক্ত করে পান স্বাস্থ্যোজ্জ্বল এবং অ্যাকনে ফ্রি ত্বক।

Tags:
COMMENT