আমার বয়স ৪১ বছর আমার দুটি ছেলে। আমাদের বিবাহিত জীবন খুবই সুখের৷ আমার স্বামীর সঙ্গে যৌনজীবনেও আমি সন্তুষ্ট৷ কিন্তু এখন আমার মনে একটি আশঙ্কা দানা বেঁধেছে৷  দীর্ঘসময় ধরে আমার গর্ভাশয়ে দুটি ছোটো ছোটো ফাইব্রয়েডস রয়েছে কিন্তু সম্প্রতি আল্ট্রাসাউন্ড করাবার পর জানতে পেরেছি টিউমারগুলির আকার বেড়ে . সেন্টিমিটার হয়ে গেছে ডাক্তারের মত হচ্ছে, আমার সম্মতি নিয়ে গর্ভাশয় বার করে দেওয়া কিন্তু টিউমারগুলি থাকাতে আমার কোনও রকম অসুবিধা হচ্ছে না তবে মনের মধ্যে ভয়ও রয়েছে, যদি ভবিষ্যতে Fibroid থেকে কোনও রকম কমপ্লিকেশন দেখা দেয় আমার কী করা উচিত?

মহিলাদের গর্ভাশয়ে ফাইব্রয়েড হওয়াটা খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। আল্ট্রাসাউন্ড করালে প্রায় ৪০ শতাংশ মহিলাদের গর্ভাশয়ে এই ফ্রাইব্রয়েডের উপস্থিতি টের পাওয়া যায়। আপনার ক্ষেত্রে এগুলি আকারে ছোটো আছে। অনেকের আবার এর আকার ফুটবলের মতোও বড়ো হয়ে যায়।

ফাইব্রয়েড থাকার ফলে, পিরিয়ডের সময় যদি অধিক রক্তপাতের সমস্যা না হয় তাহলে ওটা নিয়ে অত চিন্তা করার কোনও কারণ নেই। যে-মহিলাদের গর্ভধারণের ইচ্ছা থাকে তাদের যদি কোনও কারণে ফাইব্রয়েড থাকাতে সমস্যা দেখা দেয় যেমন, টিউমারটি চক্রাকারে ঘুরে যাওয়া অথবা রক্তাল্পতার মতো সমস্যা তৈরি হওয়া, বা ফাইব্রয়েডের আকার অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়া– এতে ব্লাডারের উপর প্রেশার পড়তে থাকে বা মলাশয়ের উপর চাপ সৃষ্টি হওয়াতে সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়৷এক্ষেত্রে ফাইব্রয়েডটি বার করে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়াই বাঞ্ছনীয়।

আপনার এখন যা বয়স, তাতে আপনি অনায়াসে টিউমারগুলি কাটাছেঁড়া না করে যেরকম আছে সেরকমই থাকতে দিতে পারেন। এছাড়া আপনার পরিবার এখন সম্পূর্ণ৷ আপনি আর সন্তানধারণের কথা ভাবছেন না৷ সুতরাং ফাইব্রয়েড থাকাতে আপনার কোনও অসুবিধাও নেই। আপনার বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যখন মাসিকচক্র বন্ধ হয়ে যাবে অর্থাৎ আপনার শরীরে যৌন হরমোনের মাত্রা কমে আসবে, তখন টিউমারগুলি নিজে থেকেই আকারে সঙ্কুচিত হয়ে যাবে।

আপনি দুশ্চিন্তা ছেড়ে বরং জীবনটাকে উপভোগ করুন৷ সন্তানরা মানুষ হয়ে গেছে, ফলে আপনি অনেকটাই ঝাড়া হাত পা৷ নিজের শখসাধ পূরণের এটাই আদর্শ সময়৷ দেশ ভ্রমণ করুন, আপনার নিজের সব অপূর্ণ ইচ্ছে পূরণ করুন৷ রোগ অসুখ নিয়েই জীবন৷ তবু এগুলো যতটা দূরে রাখা যায়,ততই ভালো৷ হেলদি লাইফস্টাইল মেনটেইন করুন৷

Tags:
COMMENT