প্র : একটা খুব জটিল সমস্যায় পড়ে এই চিঠি লিখছি৷ আমি ৩০ বছরের এক যুবতি৷পাটনায় যাই কর্মসূত্রে৷ সেখানে আমি একটি মেয়ের সঙ্গে একটা ফ্ল্যাট শেয়ার করে থাকা শুরু করি৷ সেও এন্য শহর থেকে পাটনায় চাকরি করতে এসেছে৷ফলে প্রথ্ম দিন থেকেই আমাদের খুব সহজেই বন্ধুত্ব হয়ে যায়৷ এতটাই হৃদ্যতা হয় আমাদের, যেন আমরা দুই বোন হয়ে উঠি৷

সম্প্রতি ওর বিয়ে হওয়াতে ও ওর হাজব্যান্ড-এর সঙ্গে পাটনার-ই অন্য একটি অঞ্চলে শিফ্ট করেছে, কিন্তু আমাদের বন্ধুত্ব ও নৈকট্য একই আছে৷ বান্ধবীর স্বামীর সঙ্গে ভালো বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে আমার৷ ও আমাকে ওর বাড়িতে নিমন্ত্রণ করায়, ওর আর ওর স্বামীর সঙ্গে আনন্দ করে কয়েকটা দিন কাটাব বলে ওদের বাড়ি গিয়েছিলাম৷ সেখানে অনিচ্ছাকৃত ভাবে একটি কাণ্ড ঘটে৷

ঘটনাচক্রে একদিন বন্ধু অফিস থেকে ফেরার আগেই আমি ওদের বাড়ি পৌঁছে গিয়েছিলাম, তাড়াতাড়ি ছুটি হয়ে যাওয়ার কারণে৷ গিয়ে দেখি ওর  স্বামী বাড়িতেই রয়েছেন এবং কী একটা কারণে টেনশন কাটাতে ড্রিংক করছেন৷ আমার সঙ্গে অনেকক্ষণ গল্প করলেন৷ এবং আবেগময় হয়ে উঠলেন৷

আমি বান্ধবীর স্বামীকে মানসিক সাপোর্টই দিতে চেয়েছিলাম, কিন্তু উনি চাইছিলেন অন্য কিছু৷উনি ওই আবেগের মুহূর্তে আমার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে চাইছিলেন৷ আমাকে কিছু ভাবার বা বাধা দেওয়ার অবকাশ দিলেন না৷ ফলে আমরা শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হই। যদিও এমন কোনও ভাবনা আমার মাথায় ছিল না। আমি চাইনি। তবু সব কিছুই করতে হল ওঁর সঙ্গে। 

এই পর্যন্ত শুনে যে কেউ ভাবতে পারেন, আমি একবার শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছি। এখন সে সব স্মৃতি মুছে ফেলতে চাই বলে এত কথা বলছি। কিন্তু সমস্যাটা তা নয়৷ একবার উনি ওই সুযোগ পেয়ে এখন বারবার আমায় কাছে পেতে চাইছেন৷ প্রায়ই বলছেন হোটেলে বা রিসর্টে মিলিত হতে৷ কিন্তু আমি আর আমার বান্ধবীকে নৈতিক ভাবে ঠকাতে চাইছি না৷ কী করব বলে দিন৷

 

: যে-ঘটনাটি ঘটেছে সচেতন ভাবে বা পরিস্থিতির কারণে, তা মোটেই ঘটা উচিত হয়নি৷ যাকে আপনি বোনের মতো ভালোবাসেন, তার দাম্পত্য জীবন নষ্ট হওয়ার দিকে এগোচ্ছে এই ভুলের কারণে৷ এটা আপনার মনকে দহন করছে তা আপনি নিজেও এখন বুঝতে পারছেন৷

আপনার বান্ধবীর স্বামীটির চারিত্রিক দুর্বলতা আছে৷ এই ঘটনা উনি আপনি ছাড়াও আরও কারও সঙ্গে ঘটাতে পারতেন৷ আপনি ঘটনাচক্রে পরিস্থিতির সঙ্গে জড়িয়ে গেছেন৷

এবার এই সমস্যা থেকে আপনাকেই নিষ্ক্রমণের পথ খুঁজতে হবে৷ এর জন্য ওদের সঙ্গে আপনার যোগাযোগ ছিন্ন করা ছাড়া এই মুহূর্তে আর কোনও পথ নেই৷ আপনি বাড়ি বদলে ফেলুন৷ বা চাকরিতে ট্রান্সফার নিয়ে নিন৷ যদি সেটা সম্ভব না হয় এবং পাটনাতেই থাকতে হয়, তাহলেও ওদের বলুন আপনার অন্যত্র বদলি হয়ে গেছে৷

এভাবে দূরত্ব বাড়ান৷ ফোন বা ই মেইল-এ বান্ধবীর সঙ্গে যোগাযোগটা থাক৷ এতে আপনি অনেকটা ভালো থাকবেন৷পারতপক্ষে আর ওদের বাড়ি যাওয়ার কথা ভাববেন না৷

Tags:
COMMENT