কর্মস্থলে, পার্টিতে অথবা যে-কোনও অনুষ্ঠানে, উৎসবে মেয়েরা পছন্দ করেন আধুনিক সাজসজ্জায় নিজেদের সজ্জিত করতে এবং তার সঙ্গে মানানসই মেক-আপ করতে। কিন্তু বহু চেষ্টার পরেও অনেকেই অসফল থাকেন নিজেদের আকর্ষণীয়া করে তুলতে। বরং মেক-আপের ভুল-ভ্রান্তির কারণে অনেক সময়েই তারা হয়ে পড়েন উপহাসের পাত্রী। কারণটা কী? বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় মেক-আপ করার সঠিক নিয়ম না জেনেই মেয়েরা Makeup করছেন। কখনও আইলাইনারের রং মানানসই নয়, আবার কখনও বা স্থানকাল হিসেবে অথবা নিজস্ব ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মেক-আপের কোনওই সামঞ্জস্য থাকে না।

এই সাধারণ অথচ মারাত্মক ত্রুটিবিচ্যুতিগুলো অনেকেই করে থাকেন। তাই Makeup করার আগে সাধারণত কী ধরনের ভুল হয়ে থাকে এবং এটা সমাধানের পদ্ধতিটাও সকলের জেনে রাখা উচিত। নীচে দেওয়া হল কী করবেন আর কী করবেন না, তার গাইডলাইন।

–    বেশিরভাগ মহিলা ম্যানিকিয়োর, পেডিকিয়োর করার সময়, কিছু সাধারণ বিষয়ে খেয়াল রাখেন না ফলে হাতে, পায়ে ঔজ্জ্বল্য আসে না।

–    হাত ও পায়ের নখে আগে থেকে লেগে থাকা নেলপলিশ, রিমুভার দিয়ে ভালো করে মুছে ফেলতে হবে। বোতলের উপর লেখা নির্দেশিকা অনুযায়ী রিমুভার ব্যবহার করুন। যখন অনেকে একসঙ্গে বসে পেডিকিয়োর করাবেন তখন মনে রাখতে হবে, সকলে যেন আলাদা টো-সেপারেটার ব্যবহার করেন। এছাড়া পায়ে লোশন লাগিয়ে ভালো করে মাসাজ করা খুবই জরুরি।

–    চুল ব্রাশ করার সময় বেশিরভাগ মহিলা একটাই ভুল করে থাকেন, তারা চুলের টেক্সচার না জেনেই ভুল ব্রাশ ব্যবহার করেন।

–    নরম, নাইলন ব্রিসল্স-যুক্ত হেয়ার ব্রাশ চুলকে স্ট্রেট করার কাজে সহায়তা করে। এছাড়া এই ব্রাশ খুব সহজেই চুলের ভিতর দিয়ে মাথার ত্বককে খুব ভালো করে মাসাজ করে।

–    অনেক সময় দেখা যায় মহিলারা ঠোঁটকে আকর্ষণীয় করে তুলতে ডার্ক কালারের লিপলাইনার ব্যবহার করছেন।

–    ডার্ক কালারের লিপলাইনার কখনওই ব্যবহার করা উচিত নয়। যে কালারের লিপস্টিক লাগাতে চান, সেই একই রঙের লিপলাইনার ব্যবহার করুন। এতে ঠোঁটের শেপ দেখতেও সুন্দর লাগবে অথচ আলাদা করে লিপলাইনার লাগিয়েছেন এটা বোঝাও যাবে না।

–    চোখের মেক-আপ করার সময় অনেকেই এমন শেডস লাগান যে, অ্যাট্রাকটিভ হয়ে ওঠার বদলে ভয়ংকর দেখতে লাগে।

–    চোখের মেক-আপ করার জন্য সফট গোল্ডেন অথবা সফট পিংক শেড বাছুন। আইল্যাশ লাগাতে না চাইলে, চোখের বাইরের দিকে কোণায় ডার্ক পেনসিল কালার লাগিয়ে নিন। আইশ্যাডো যখন লাগাবেন, চোখের দুই কোণায় একটু বেশি করে আইশ্যাডো লাগিয়ে নেবেন। তারপর একটি আইব্রাশের সাহায্যে চোখের উপরদিকে শ্যাডো লাগিয়ে রংটা ত্বকের সঙ্গে ব্লেন্ড করে দিতে হবে।

–    চুলের স্টাইলের জন্য উপযুক্ত চিরুনি ব্যবহার না করলে, চুল উশকোখুশকো থাকবে এবং দেখতেও বিচ্ছিরি লাগবে।

–    চুল আকর্ষণীয় ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল করে তুলতে হলে, চুলের সঠিক যত্ন নিতে হবে। মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল ভালো করে আঁচড়ে তারপর চুল সেটিংয়ের জন্য প্রয়োজনমতো চিরুনি ব্যবহার করুন।

 

 

 

 

 

Tags:
COMMENT