নিম্নবিত্ত পরিবারে বেড়ে ওঠা দুই বন্ধু আশিক শেখ এবং আরিফ শেখ। একজনের বাবা ইটভাটার শ্রমিক হিসেবে দিন গুজরান করেন, অপরজন কাঠের কাজ করেন। শৈশবের বন্ধুত্ব, ভালোবাসা, ধর্মনিরপেক্ষতা সবকিছুর মিশেল ঘটেছে Cinema-টিতে।

প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের নিবেদনে ১১ নভেম্বর সারা দেশে মুক্তি পেয়েছে ছবিটি। আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত ছবি ‘দোস্তজি’ পরিচালনা করেছেন টলিউডের তরুণ পরিচালক প্রসূন চট্টোপাধ্যায়। পরিচালনার দক্ষতায় ছবিটি এক অনন্য মাত্রা পেয়েছে। তুহিন বিশ্বাসের ক্যামেরা, গল্পের গাঁথুনি, ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক সবকিছুই অনবদ্য।

এই ছবির সিনেমাটোগ্রাফার, রানাঘাটের প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক তুহিন বিশ্বাস এই ছবির দৌলতে পৌঁছেছেন গোল্ডেন গ্লোবালের মঞ্চে, যেখানে সেরা চিত্রগ্রাহকের মনোনয়ন পেয়েছেন তিনি। লন্ডন, সুইডেন, ডারবান, জাপানের ফেস্টিভ্যালে দেখানো হচ্ছে এই ছবি। এছাড়াও সারা বিশ্বের বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে ছবিটি সমাদৃত হয়েছে। একাধিক দেশের ফেস্টিভ্যালেও প্রশংসিত হয়েছে। ২৬টি দেশে দেখানো হয়েছে ‘দোস্তজি’। আটটি আন্তর্জাতিক স্তরের পুরস্কারও রয়েছে ছবিটির ঝুলিতে।

বহু কষ্টের ফসল হল ‘দোস্তজি’ Cinema-টি। পরিচালক প্রসূন চট্টোপাধ্যায়ের এটিই প্রথম কাজ। প্রথম প্রথম অর্থাভাবের কারণে ছবিটি করতে অনেক কষ্ট করেছেন পরিচালক। পাশে পেয়েছেন তুহিনের মতো সিনেমাটোগ্রাফারকে, যিনি বিনা পারিশ্রমিকে বন্ধুর কাজ করেছেন এবং সফল হয়েছেন। স্টিল ফটোগ্রাফার থেকে সিনেমাটোগ্রাফার হয়ে ওঠার যে জার্নি তুহিনের সেটাও কম সংঘাতময় ছিল না তাঁর জন্য। কিন্তু আজ তাঁরা পরিচিত নাম, সারা বিশ্বে বাঙলির গর্ব।

এবার আসা যাক ছবির দুই শিশু শিল্পী আশিক শেখ এবং আরিফ শেখের কথায়। ছবিতে দুই বন্ধুর চরিত্রে দু’জনের অভিনয় প্রশংসিত আজ বিশ্বজুড়ে। এক বন্ধু হিন্দু ব্রাহ্মণ নাম পলাশ, অন্যজন সফিকুল জাতে মুসলমান। বাংলাদেশ বর্ডারের কাছে মুর্শিদাবাদের প্রত্যন্ত গ্রামের বাসিন্দা এই দুই শিশুর বিশুদ্ধ সম্পর্কের উষ্ণতা, একে অপরের প্রতি ভালোবাসার টানই এই ছবির প্রাণ। মুর্শিদাবাদের ডোমকলের অন্তর্ভুক্ত ভগীরথপুরের বাসিন্দা এই দুই খুদে মাস্টার। গ্রামের বাইরে পা না রেখেও বিশ্বের মানুষের মন জয় করে নিয়েছে নিজেদের অভিনয় ক্ষমতা দিয়ে। জিতে নিয়েছে ২০২২-এর মালয়েশিয়া গেল্ডেন গ্লোবাল অ্যাওয়ার্ড-এ সেরা অভিনেতার পুরস্কার। ইউনেস্কোর ‘সিফেজ’ পুরস্কারও রয়েছে ‘দোস্তজি’ ছবির ঝুলিতে।

ছবির দুই খুদে শিল্পীর অভিনয় এবং পুরো Cinema-টি দেখে মুগ্ধ বলিউডের সিনিয়র অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন এবং সেকথা তিনি জানিয়েছেন টুইট করে। ছবিটির সঙ্গে যুক্ত প্রত্যেক শিল্পীর জন্য রইল আমাদের অনেক শুভকামনা।

 

Tags:
COMMENT