মাটন, বিফ, চিকেন সব কিছুরই কাবাব বাজারে কিনতে পাওয়া যায়। তবে আপামর বাঙালি চিকেনের কাবাব খেতেই বেশি পছন্দ করেন কারণ তাঁরা বাইরে বেরিয়ে চিকেন খাওয়াটাই বেশি সেফ মনে করেন। তবে সাধারণত যে-কোনও কাবাবই আমরা রেস্তোরাঁতে গিয়ে খেয়ে থাকি। কিন্তু যদি বাড়ি বসেই চিকেন Seekh Kabab বানিয়ে ফেলতে পারি তাহলে …আর ভাবার দরকার নেই। কাবাবের নাম শুনে এমনিই জিভে জল চলে আসছে। তাহলে দেরি না করে চটপট শিখে নিই কাবাব তৈরির পদ্ধতি।

উপকরণ

১/২ কেজি হাড় ছাড়া মুরগির মাংস কিমা করা, ১৫০ গ্রাম খাসির চর্বি, ৩টি পেঁয়াজ, ৫-৬টি কাঁচালংকা কুচি, ১/২ চা চামচ কাবাব চিনি গুঁড়ো, ১/২ কাপ ছাতু, ১/২ চা চামচ জিরেগুঁড়ো, ১/২ চা চামচ ধনেগুঁড়ো, ১/২ চা চামচ গোলমরিচগুঁড়ো, ১ চা চামচ গরমমশলার গুঁড়ো, ১ চা চামচ লংকাগুঁড়ো, ১ চা চামচ হলুদগুঁড়ো, ২ চা চামচ কাবাব মশলা, ২ চা চামচ আদা ও রসুন কুচি করা, ২ টেবিল চামচ কাজু ও পোস্তবাটা, ১টি লেবুর রস, ২ টেবিল চামচ ধনেপাতা কুচি করা, সরষের তেল, লবণ স্বাদমতো, ৫-৬টি শিক।

প্রণালী

মুরগির মাংসের কিমা ভালো করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিন। পেঁয়াজ, আদা, রসুন, কাঁচালঙ্কা, ধনেপাতা একসঙ্গে বেটে একটি কাপড়ের সাহায্যে সমস্ত জল বার করে নিন।  এবার একে একে সমস্ত উপকরণ কিমার মধ্যে দিয়ে ভালো করে মেখে নিন। শুকনো খোলায় ভেজে রাখা ছাতু এবারে ওতে দিয়ে আবারও ভালো করে মেখে নিন এবং ম্যারিনেট হওয়ার জন্য ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিন। খেয়াল রাখতে হবে যাতে কোনও উপকরণে জল না থেকে যায়।

কাবাবের জন্য যদি বাঁশের কাঠি ব্যবহার করেন তাহলে সেগুলো ২ ঘণ্টা জলে ভিজিয়ে রেখে দিন। ৩-৪ ঘণ্টা পর ফ্রিজ থেকে ম্যারিনেট হয়ে থাকা কিমাটা বার করে নিন। একটা বাটিতে তেল নিয়ে হাতে তেল লাগিয়ে কাবাবের পুর নিয়ে কাঠির গায়ে আস্তে আস্তে লাগিয়ে দিন।

কাঠিতে লাগানো মাংসের উপর মাখন ব্রাশের সাহায্যে লাগিয়ে তাওয়া বা মাইক্রোআভেন-এ অথবা গ্রিলারে গ্রিল করে নিন। উলটে পালটে ভালোভাবে গ্রিল করুন। রেডি হয়ে যাওয়া শিক কাবাব এবার গ্রিলার থেকে নামিয়ে মাখন ব্রাশ করে গরম গরম পরিবেশন করুন স্ন্যাক্স হিসেবে।

Tags:
COMMENT